ছবিঃ চারি লোকপাল দেবরাজ

ভিক্ষুগণ, অষ্টমী দিবসে চারি মহারাজার অমাত্য, পরিষদবর্গ মনুষ্যদের মধ্যে অনেক লোক মাতাপিতা, শ্রমণ-ব্রাহ্মণের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে কিনা এবং জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ, উপোসথ পালন, জাগ্রত হইয়া বিহার করে কিনা ও পুণ্যকর্ম করে কিনা তাহা দেখিবার জন্যে পৃথিবী অবলোকন করেন।

হে ভিক্ষুগণ, চতুর্দশী দিবসে চারি মহারাজার পুত্রগণ মনুষ্যদের মধ্যে অনেক লোক মাতাপিতা, শ্রমণ-ব্রাহ্মণের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে কিনা এবং জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ, উপোসথ পালন, জাগ্রত হইয়া বিহার করে কিনা ও পুণ্যকর্ম সম্পাদন করে কিনা তাহা দেখিবার জন্যে পৃথিবী অবলোকন করেন।

হে ভিক্ষুগণ, মনুষ্যদের মধ্যে যদি অল্পসংখ্যক লোক মাতাপিতা, শ্রমণ-ব্রাহ্মণের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে এবং জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ, উপোসথ পালন, জাগ্রত হইয়া বিহার করে ও পুণ্যকর্ম সম্পাদন করে তাহা হইলে চারি মহারাজা তাবতিংস দেবতাদের সদ্ধর্ম সভায় উপবিষ্টদের মধ্যে তাহা পেশ করেন- “দেবগণ,মনুষ্যদের মধ্যে যদি অল্পসংখ্যক লোক মাতাপিতা, শ্রমণ-ব্রাহ্মণের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে এবং জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ, উপোসথ পালন, জাগ্রত হইয়া বিহার করে ও পুণ্যকর্ম সম্পাদন করে।”

হে ভিক্ষুগণ, তখন তাবতিংস দেবগণ অসন্তুষ্ট হন এবং বলেন, “ওহে, দিব্যকায়া ক্ষীণ হইবে এবং অসুর দ্বারা পরিপূর্ণ হইবে।”

কিন্তু ভিক্ষুগণ, মনুষ্যদের মধ্যে যদি অনেক লোক মাতাপিতা, শ্রমণ-ব্রাহ্মণের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে এবং জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ, উপোসথ পালন, জাগ্রত হইয়া বিহার করে ও পুণ্যকর্ম সম্পাদন করে তাহা হইলে চারি মহারাজা তাবতিংস দেবগণকে সদ্ধর্ম সভায় উপস্থিত সদস্যদের মধ্যে তাহা অবহিত করেন এবং বলেন, “ওহে প্রভু, মনুষ্যদের মধ্যে অনেক লোক মাতাপিতা, শ্রমণ-ব্রাহ্মণের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে এবং জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ, উপোসথ পালন, জাগ্রত হইয়া বিহার করে ও পুণ্যকর্ম সম্পাদন করে তাহা হইলে চারি মহারাজা তাবতিংস দেবতাদের সদ্ধর্ম সভায় উপবিষ্টদের মধ্যে তাহা পেশ করেন- “দেবগণ, মনুষ্যদের মধ্যে বহুসংখ্যক লোক মাতাপিতা, শ্রমণ-ব্রাহ্মণের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে এবং জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ, উপোসথ পালন, জাগ্রত হইয়া বিহার করে ও পুণ্যকর্ম সম্পাদন করে।” হে ভিক্ষুগণ, তাহাতে তাবতিংস দেবগণ আনন্দিত হন এবং বলেন, “ওহে, দিব্য কায়া পরিপূর্ণ হইবে এবং অসুর কায়া ক্ষীণ হইবে।” (সংগৃহীত)